Saturday, February 24, 2024

লাগবে না জমি, বাড়িতেই চাষ করুন শসা, শিখে নিন পদ্ধতি

বিভিন্ন পুষ্টিগুণ সম্পন্ন একটি গুরুত্বপূর্ণ ফল হল শসা। এতে প্রায় ৯৫ শতাংশ জল থাকে। তাই জন্য গরমকালে শসা খাওয়া স্বাস্থ্যের পক্ষে খুবই উপকারী। শসা শরীরকে হা’ইড্রেট রাখতে সাহায্য করে। এছাড়া এতে বিভিন্ন পুষ্টিগুণ রয়েছে। এমনকি ডাক্তারও শরীরের বিভিন্ন উপকারের জন্য শসা খেতে বলেন। ম্যাগ’নেসিয়াম, পটা’শিয়াম, ক’পার, ভিটা’মিন কে, সি যুক্ত এই ফল আমাদের পেট, ত্ব’ক,চুলের স্বাস্থ্য ভালো রাখে ও ওজন কমাতে সাহায্য করে।

তাই আমাদের নিত্যদিনই বাজার চলতি শসা কিনে আনতে হয়। কিন্তু আজকের এই প্রতিবেদনে বাজার থেকে না কিনে কীভাবে ঘরেতেই পর্যাপ্ত পরিমাণে শসা উৎপাদন করা সম্ভব সেই বিষয়ে আলোচনা করা হল। এই পদ্ধতিতে কোনো বড় বাগানের প্রয়োজন পড়বে না। শুধুমাত্র বস্তার মধ্যে মাটি ভরেই চাষ করতে পারা যাবে শসার।

১) প্রথমেই একটি সিমেন্টের বস্তা নিয়ে তাতে পর্যাপ্ত পরিমাণে দোআঁশ মাটি এবং গোবর সার মিশিয়ে মাটি তৈরি করে নিতে হবে। এই মাটিতে শসা খুব ভালো উৎপাদন হয়।

২) এরপর বাজার থেকে ভালো মানের শসার বীজ কিনে এনে মাটির একটু ভিতর দিক করে বীজগুলি পুঁতে দিতে হবে।

৩) মাটিতে নিয়মিত জল দেওয়া প্রয়োজন। দেখা যাবে সাত আট দিনের মাথায় ছোট ছোট চারা গাছ বেরিয়েছে। চারা গাছ বেরোনোর পনেরো থেকে কুড়ি দিন খুবই যত্নের প্রয়োজন। এক্ষেত্রে পর্যাপ্ত সূর্যালোক এবং জলের প্রয়োজন। না হলে গাছ পুষ্টি পাবে না।

৪) এরপরের পর্যায়ে গাছের উপযুক্ত বৃদ্ধির জন্য বেশ কিছু জৈ’ব সা’র প্রয়োগের প্রয়োজন। তাই বাজার থেকে জি’ঙ্ক, ক’পার, সাল’ফেট, ফস’ফরাস, সী’সা, অ্যা’মনিয়া যুক্ত জৈ’ব সার কিনে এনে গাছের গোড়ায় প্রয়োগ করতে হবে।

৫) যেহেতু শসা গাছ একটু লতানে হয় তাই গাছ একটু বড় হলেই চারদিকে বাঁশ এবং সুতোর সাহায্যে মাচা তৈরি করে দিতে হবে।

৬) এরপর প্রায় পঞ্চাশ দিনের মাথায় দেখা যাবে শসা গাছের সম্পূর্ণরূপে বৃদ্ধি ঘটেছে এবং গাছ ভর্তি ফল ধরেছে।

সতর্কীকরণ: এই প্রতিবেদনে যে পদ্ধতি লেখা হয়েছে সেটিই একমাত্র সঠিক পদ্ধতি এরকম কখনোই নয়। অবশ্য কৃষিবিদদের উপযুক্ত পরামর্শ অনুযায়ী এই প্রতিবেদন লেখা হয়েছে। যেকোনো ব্যক্তি বিশেষে পদ্ধতির পার্থক্য থাকতেই পারে।

এই সম্পর্কিত আরও খবর

সর্বশেষ আপডেট