Friday, June 21, 2024

ইউরোপে রপ্তানি হচ্ছে যশোরের হিমসাগর আম!

বর্তমানে দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও এই আমের চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে। বৈদেশিক মূদ্রা অর্জনের লক্ষ্যে এখানকার হিমসাগর আম প্রথমবারের মতো ইউরোপ রপ্তানি করা হচ্ছে। যশোরের শার্শা উপজেলায় বিষমুক্ত হিমসাগর আমের চাষ করা হয়েছে। খেতে সুস্বাদু ও মিষ্টি হওয়ায় এই জাতের আমের বেশ চাহিদা রয়েছে।

যশোরের শার্শা উপজেলার বাইকোলা গ্রামের আবু নাঈমের বাগান থেকে গত রোববার ১ টন আম ইউরোপ রপ্তানি করা হয়। রপ্তানি করার লক্ষ্যেই তার বাগানে বিষমুক্তভাবে আমের চাষ করা হয়। এতে আরো আম রপ্তানি করার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। রপ্তানির সময় উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা প্রতাপ মন্ডল, সহকারি কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা রমেশ চন্দ্র বিশ্বাস সহ আরো অনেক কৃষি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বর্তমানে প্রথম চালান যাচ্ছে।

শার্শা উপজেলায় গত ৫ মে থেকে গোবিন্দভোগ, গোপালভোগ, খিরসরাই, বৈশাখীসহ বিভিন্ন প্রজাতির আম পেড়ে বাজারজাত শুরু হয়। আর ১০ মে থেকে হিমসাগর আম পাড়া শুরু হয়েছে। আগামী ১ জুন থেকে আমের রাজা ল্যাংড়া আম পাড়া শুরু হবে।

কৃষক আবু নাঈম বলেন, আমি বাগানে বিষমুক্তভাবে আম চাষ করে থাকি। আমার বাগানের এক টন হিমসাগর আম ইউরোপে রপ্তানির জন্য বিক্রি করেছি। এর আগে আমার বাগানের আম সুইডেন গিয়েছিল। এবার জার্মান, ফ্রান্স, ইতালিসহ ইংল্যান্ডেও রপ্তানি হওয়ার কথা রয়েছে। আশা করছি কিছুদিনের মধ্যেই আরও অর্ডার পাবো।

এসিআই লজিস্টিকের প্রতিনিধি হাদিউজ্জামান শাহিন বলেন, স্থানীয় অনেক ব্যবসায়ীরা কৃষকদের জিম্মি করে তাদের কাছ থেকে কম দামে আম কিনে থাকে। এতে কৃষকরা তাদের ন্যায্য দাম থেকে বঞ্চিত হন। আমরা কৃষকের পাশে আছি। আমরা কৃষকদের থেকে ন্যায্য দামে আম কিনে দেশের বাজারের পাশাপাশি বিদেশেও রপ্তানি করবো।

শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা প্রতাপ কুমার বলেন, চলতি বছর এই উপজেলায় ৯ হাজার হেক্টর জমিতে আমের চাষ করা হয়েছে। চাহিদা বাড়ায় এখান থেকে ল্যাংড়া ও আম্রপালিসহ বিভিন্ন জাতের ১০০ টন আম ইউরোপের বিভিন্ন বাজারে রপ্তানি করা হবে। এবছর প্রথমবারের মতো শার্শা থেকে হিমসাগর আম ইউরোপে রপ্তানি হচ্ছে।

এই সম্পর্কিত আরও খবর

সর্বশেষ আপডেট