Wednesday, May 22, 2024

রাজশাহীতে হলুদের বাম্পার ফলন, দামে খুশি চাষিরা

গত কয়েক বছর যাবত এই ফসল চাষ করে কৃষকরা লাভবান হতে পারছেন বলে দিন দিন এর চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়াও এবছর হলুদের ভাল ফলনের পাশাপাশি বর্তমান বাজারদরেও খুশি কৃষকরা। রাজশাহীতে মসলা জাতীয় ফসল হলুদ চাষে কৃষকের আগ্রহ বাড়ছে। এই ফসলটি রান্নায় ব্যাপক ব্যবহার। ফলে সারাবছরই এর চাহিদা রয়েছে।

রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের চাষিরা ব্যাপক পরিমানে হলুদ চাষ করছেন। অল্প খরচে ও কম পরিচর্যায় বেশি ফলন পাওয়া যায় বলে কৃষকরা এর চাষ করে থাকেন। এছাড়াও পুরো বছর জুড়েই এর চাহিদা রয়েছে। আশানুরূপ ফলন ও বাজার ভাল পাওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। এই জেলায় চাষের পরিমান বাড়ার পাশাপাশি অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর হলুদের ফলন বেশি হয়েছে।

চলতি বছর জেলার বছর পুঠিয়া উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নে প্রায় সাড়ে চারশত হেক্টর জমিতে হলুদের চাষ করা হয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় ৪০ হেক্টর বেশি। আর ৮ হাজার ৪২০ মেট্রিক টন হলুদ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে।

বানেশ্বর হাটে আগত হলুদ চাষী কাওসার আলী বলেন, প্রায় প্রতিটি রান্নায় ব্যবহার হয় বলে সারাবছর হলুদের চাহিদা থাকে। এর চাষে সার ও কীটনাশকের পরিমান খুবই কম লাগে। চাহিদার কথা মাথায় রাখতে হয় না। এর চাষে লাভবান হতে পারায় অনেকেই এর চাষ করছেন। গত বছরের তুলনায় এবছর ফলন বেশি পেয়েছি।

হলুদ ব্যবসায়ী আজগর উদ্দিন বলেন, সারাদেশে পুরো বছরজুড়ে হলুদের চাহিদা রয়েছে। এর চাহিদা কখনো কমেনি। বর্তমানে প্রকারভেদে প্রতি মণ হলুদ ১৩০০-১৬০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর হলুদের বাজারদর ভাল।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম বলেন, রাজশাহী জেলায় দিন দিন হলুদ চাষ জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। কৃষকরা আবাদি জমির পাশাপাশি অনাবাদি পতিত জমিতেও এর চাষ করছেন। অল্প পুঁজি ও সঠিক পরিচর্যায় বেশি ফলন পাওয়া যায়। আমরা কৃষকদের মাঠপর্যায়ে যেয়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শ ও সহযোগিতা করছি। এছাড়াও সারাবছর জুড়ে এর চাহিদা ও দাম দুটোই ভাল পাওয়া যায়।

এই সম্পর্কিত আরও খবর

সর্বশেষ আপডেট