Saturday, February 24, 2024

মেঘনায় ফের জেলের জালে বিরল প্রজাতির ‘রাজ কাঁকড়া’

ভোলার বোরহানউদ্দিনে মেঘনা নদীতে ফের জেলের জালে বিরল প্রজাতির একটি ‘রাজ কাঁকড়া’ ধরা পড়েছে ৷ এটি দেখতে অনেকটা পানপাতা মাছের মতো ৷ শক্ত পিঠের ওপরে চোখ, নিচের অংশে মুখ ও ছোট ছোট অনেকগুলো পা এবং পেছনে একটি সরু লেজ রয়েছে।

শুক্রবার (১৬ জুন) সন্ধ্যায় উপজেলার বাথানবাড়ি গ্রামে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসেন রাকিব মাঝি। এর পর থেকে এলাকায় অনেক সাড়া ফেলে ।

এর আগে মঙ্গলবার (১৩ জুন) ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার সামরাজ মাছ ঘাট এলাকায় মাছ ধরতে গিয়ে রাকিব মাঝির জালে কাকঁড়াটি ধরা পরে।

রাকিব মাঝি জানান, গত মঙ্গলবার চরফ্যাশনের মেঘনা নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে জালে ধরা পরে এই রাজ কাঁকড়াটি। পরে নৌকায় তুলে একটি পাত্রে পানিতে রেখে দেই।

তিনি জানান, এ ধরনের কাঁকড়া এর আগে কখনো দেখিনি। লোক মুখে শুনেছি এই কাঁকড়ার দাম কয়েক লাখ টাকা। তাই বিক্রির আশায় সামরাজ ঘাট থেকে বাড়িতে আসার সময় পানির পাত্রে করে নিয়ে এসেছি এবং তাতেই রেখে দিয়েছি ৷ এটি এখন অনেকেই দেখতে আসছেন ৷ কাঁকড়াটির ওজন প্রায় ২০০ গ্রাম।

সরকারি আব্দুল জব্বার কলেজের প্রাণী বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান নীল কমল পাল বলেন, এটিকে কাঁকড়া বলা হলেও প্রজাতিগত দিক থেকে মাকড়সার সঙ্গে বেশি মিল রয়েছে। এরা লিমুলিডি গোত্রের অন্তর্গত সামুদ্রিক সন্ধিপদী। এরা প্রধানত অগভীর সমুদ্র ও নরম বালি বা কাদা সমৃদ্ধ সমুদ্রতলে বাস করে।

সংগৃহীত ছবি

এ বিষয়ে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লা এমদাদ উল্যাহ জানান, এই কাঁকড়াটির নাম লিমুলাস। এটি রাজ কাঁকড়া নামেও পরিচিত। এরা প্রধানত অগভীর সমুদ্র ও নরম বালু বা কাঁদা সমৃদ্ধ সমুদ্রতলে বাস করে। ডাঙায় সচরাচর পাওয়া যায়। এগুলোর দাম নিয়ে লোক মুখে যা শোনা যায় তা গুজব, এর কোনো ভিত্তি নেই।

গত ১৭ মে একই উপজেলার ফারুক মাঝি নামে জেলের জালে একটি ‘রাজ কাকড়া’ ধরা পরে এবং ছয় দিন পর তা চুরি হয়ে যায়।

সূত্র: ইত্তেফাক।

এই সম্পর্কিত আরও খবর

সর্বশেষ আপডেট