Saturday, February 24, 2024

মিষ্টি আলু চাষে সিদ্দিকের মুখে হাসি ফুটেছে!

সিদ্দিক দেড় বিঘা জমিতে মিষ্টি আলুর চাষ করে বাম্পার ফলন পেয়েছেন। এছাড়াও উৎপাদিত আলু বাজারে ভালো দামে বিক্রি করতে পেরে তিনি লাভবান হয়েছেন। কম খরচে বেশি লাভবান হওয়া যায় বলে তার দেখাদেখি অনেকেই এবছর মিষ্টি আলুর চাষ করেছেন। এছাড়াও সাঘাটার এই মিষ্টি আলু জাপান ও সিঙ্গাপুরে রপ্তানি করা হচ্ছে। গাইবান্ধার সাঘাটায় মিষ্টি আলু চাষে কৃষক সিদ্দিকের মুখে হাসি ফুটেছে।

সিদ্দিক গাইবান্ধা সাঘাটা উপজেলার কচুয়া গ্রামের বাসিন্দা। তিনি পেশায় একজন কৃষক। কৃষি কাজ করেই তার সংসার পরিচালনা করেন। এবছর তিনি তার জমিতে মিষ্টি আলুর চাষ করে ব্যাপক ফলন পেয়েছেন। খরচ বাদ দিয়ে পাইকারি দরে বিক্রি করে তিনি দ্বিগুণ লাভ করতে পেরেছেন। তাদেরকে লাভবান হতে দেখে আরো অনেক কৃষক মিষ্টি আলু চাষে আগ্রহী হয়েছেন। কৃষক সিদ্দিক ছাড়াও সাঘাটা উপজেলার বাঙ্গালী নদীর চরবেষ্টিত পতিত জমিতে আরো ১৩ জন কৃষক মিষ্টি আলু চাষ করে লাভের মুখ দেখেছেন।

চলতি মৌসুমে সাঘাটা উপজেলার বাঙ্গালী নদীর চর ও নদীর তীরবর্তী পতিত ১৭০ হেক্টর জমিতে জাপানি কোকি ১৪গো জাতের ১০ হেক্টর ৭৫বিঘা ও অন্যান্য জাতের ১৬০হেক্টর জমিতে মিষ্টি আলুর চাষ করা হয়েছে। এবছর প্রথমবারের মতো এখানকার উৎপাদিদত আলু জাপান ও সিঙ্গাপুর রপ্তানি হচ্ছে।

কৃষক সিদ্দিক বলেন, আমি এবছর ৫০ শতক অর্থাৎ দেড় বিঘা জমিতে জামানি কোকি ১৪ জাতের মিষ্টি আলুর চাষ করেছি। জমিতে ফলন ভালো হওয়ায় ৫ হাজার ২৬০ কেজি আলু উৎপাদন হয়েছে। উৎপাদিত আলু পাইকারি প্রতি কেজি ১৬ টাকা দরে বিক্রি করেছি। এতে খরচ বাদে দ্বিগুণ লাভ করতে পেরেছি। আগামীতে আরো বেশি জমিতে চাষ করবো। ৮৪ হাজার টাকার আলু বিক্রি করতে পেরেছি।

এখানকার উৎপাদিত মিষ্টি আলু নারুতো জাপান কোম্পানি নামের একটি জাপানি প্রতিষ্ঠান। তারা কৃষকদের কাছ থেকে প্রতি কেজি ১৬ টাকা দরে ২৪.৩১৭ মেট্রিক টন আলু ক্রয় করেছেন। কৃষি বিভাগের সহযোগিতায় জাপানি প্রতিষ্ঠানটি কৃষকের কাছ থেকে থেকে সরাসরি মিষ্টি আলু কিনে নিয়ে জাপান ও সিঙ্গাপুরে রপ্তানি করছেন।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ সাদেকুজ্জামান বলেন, আমরা চরের চাষিদের পতিত জমিগুলো চাষের আওতায় এনে সেখানে ২-৩ ফসলি জমিতে রূপান্তর করার চেষ্টা করছি। এখানকার কৃষকদের আলু জাপান ও সিঙ্গাপুরেও রপ্তানি হচ্ছে। বর্তমানে চরের জমিতে চাষিরা মিষ্টি আলু চাষ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন।

এই সম্পর্কিত আরও খবর

সর্বশেষ আপডেট