Friday, June 21, 2024

ভুট্টার বাম্পার ফলনে খুশি ভৈরবের চাষিরা

এবছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় কৃষকরা ব্যাপক ফলন পেয়েছেন। জমিতে ভালো ফলন দেখে কৃষকদের মুখে হাসি ফুটেছে। ভৈরবে ভুট্টার বাম্পার ফলন হয়েছে। অন্যান্য ফসলের তুলনায় ভুট্টা চাষে খরচ কম। এছাড়াও উৎপাদিত ভুট্টা বাজারে ভালো দামে বিক্রি করে লাভবান হওয়া যায় বলে কৃষকরা এই ফসল চাষে ঝুঁকছেন।

ভৈরবের সবগুলো উপজেলায় কম বেশি ভূট্টার আবাদ করা হয়েছে। তবে তরমধ্যে ভৈরব উপজেলার গজারিয়া ও সাদেকপুর ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ চরে ভুট্টার ব্যাপক চাষ হয়েছে। এখানকার কৃষকরা আগে ভুট্টার মাড়াই ও ঝাড়াইয়ের সমস্যার কারণে এই ফসলের চাষ ছেড়ে দিয়েছিল। তবে বর্তমানে আধুনিক মেশিনের মাধ্যমে খুব সহজেই ভুট্টা মাড়াই করতে পারছেন। এখন কৃষকরা তাদের জমি থেকে ভুট্টা তোলার কাছে ব্যস্ত সময় পার করছেন। কৃষকদের চোখে মুখে খুশির হাসি দেখা গেছে। তাই এখন আবার ভুট্টা চাষে ঝুঁকে পড়েছেন।

চলতি বছর ভৈরবে ৬৫ হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ করা হয়েছে। কৃষকরা বিঘাপ্রতি ৭ হাজার টাকা খরচে প্রায় ৪০ মণ ভুট্টা উৎপাদন করতে পারেন। যার বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ৫০ হাজার টাকা। তাই দিন দিন এর চাষ বাড়ছে।

চাষিরা বলেন, আগে তারা ধানসহ অন্যান্য ফসলের চাষ করতো। তবে ধান বা অন্যান্য ফসলের তুলনায় ভু্ট্টা চাষে খরচ কম। ফলন বেশি। এছাড়াও বর্তমান বাজারে প্রতিমণ ধান ১০০০ টাকা দরে বিক্রি হলেও ভুট্টা ১৪০০ টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে।

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা আকলিমা বেগম বলেন, আমরা কৃষকদের অনাবাদি পতিত জমিগুলো চাষের আওতায় নিয়ে আসার চেষ্টা করছি। এই মৌসুমে ৬৫ হেক্টর জমিতে ভুট্টার চাষ করা হয়েছে। কৃষকরা অল্প খরচে বেশি ফলন ও বাজারে ভালো দামে বিক্রি করে লাভবান হতে পারছেন। আশা করছি আগামীতে চাষের পরিমান আরো বাড়বে। আমরা কৃষকদের সব ধরনের সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছি।

এই সম্পর্কিত আরও খবর

সর্বশেষ আপডেট