Friday, June 2, 2023

তীব্র গরমে প্রাণ জুড়াচ্ছে তালশাঁস

প্রচণ্ড তাপদাহে একটু শীতল ছায়া আর তৃষ্ণা নিবারণের জন্য সবাই যখন পানীয় খুঁজছেন তখন সেই চাহিদা মেটাচ্ছে তালশাঁস। এক সময় প্রচন্ড গরমে জনসাধারণের তৃষ্ণা নিবারণের অন্যতম পানীয় ছিল ডাবের পানি। কিন্তু এ বছর ডাবের দাম বেড়ে যাওয়ায় অনেকের ক্রয় ক্ষমতার নাগালের বাহিরে চলে গেছে। ঠিক সেই জায়গায়টা দখল করে নিয়েছে তালশাঁস। দামে সস্তা হওয়ায় সবার কাছে প্রিয় হয়ে উঠেছে তালশাঁস। তীব্র গরম। ঘর থেকে বের হলেই মনে হচ্ছে অগ্নিকুণ্ড। একেবারেই হাঁসফাঁস অবস্থা।

জেলার বিভিন্ন এলাকার তালশাঁস বিক্রেতারা বলেন, মূলত সারা বছরই ডাব বিক্রি করি কিন্তু এ বছর ডাবের দাম বেশি হওয়ায় বিক্রি কমে গেছে। এখন তালশাঁস বিক্রি করি। দামে কম হওয়ায় প্রতিদিন বেশ ভালোই বিক্রি হয়। প্রতিদিন আনুমানিক পাঁচ শতাধিক তালশাঁস বিক্রি করছি।

তারা আরও বলেন, সাইজ অনুযায়ী ১০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২০ টাকার মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে তালশাঁস। এক একটি তালের ফলে দুই-তিনটি করে শাঁস পাওয়া যায়। ভ্রাম্যমাণ তালশাঁস বিক্রেতা মো. শাহিন হাওলাদার। তিনি জানান, আগে স্থানীয় একটি ইটভাটায় কাজ করতেন। এখন ভ্যানগাড়িতে করে তালশাঁস বিক্রি করছেন।

তিনি জানান, তালগাছের মালিকের কাছ থেকে প্রতি পিস ৫ টাকা দামে ক্রয় করেন তিনি। তবে গাছে উঠানোর জন্য তার আলাদা লোক ভাড়া করতে হয়। তাকে গাছ প্রতি দিতে হয় একশ টাকা। সবমিলিয়ে প্রতি পিসে ৭ টাকার মতো খরচ হয়।

ক্রেতা আব্দুর রহমান হাওলাদার বলেন, অন্যান্য জিনিসের যে দাম তার থেকে এগুলো অনেক ভালো। দামেও সস্তা। এছাড়া বাচ্চারও পছন্দ। এটাতে নেই কোনো ভেজাল, ফরমালিন, সারায়নিক সার ও কীটনাশক। একদম প্রাকৃতিক একটি খাবার পানীয়। তাই অনেকগুলো কিনে বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছি।

ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার মেহেদী হাসান সানি বলেন, তালশাঁস স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। এটার কোরো খারাপ দিক নেই। অন্যান্য ফলে যেমন ভিটামিন রয়েছে এটাতেও ঠিক তেমন উপকারী ভিটামিন রয়েছে। গরমে পানি শূন্যতা পূরণে খুবই কার্যকরী।

এই সম্পর্কিত আরও খবর

সর্বশেষ আপডেট