লড়াইটা দুই হোসেনের

আসন্ন আফগানিস্তান ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে একদিনের সিরিজের জন্য বাংলাদেশের চূড়ান্ত স্কোয়াড ঘোষণা করা হবে ২২ সেপ্টেম্বর। এদিকে চুড়ান্ত দলে তৃতীয় ওপেনার হিসেবে লড়াই হবে ইমরুল কায়েশ ও এনামুল হক বিজয়ের মধ্যে। অন্যদিকে মিডিল অর্ডার ব্যাটসম্যান নাসির হোসেন ও তরুণ মোসাদ্দেক হোসেনের মধ্যে থেকে যে কোনো একজন সুযোগ পেতে পারেন!

অনেকদিন থেকেই আন্তর্জাতিক একদিনের ম্যাচ খেলছে না বাংলাদেশ। সর্বশেষ খেলেছে জিম্বাবুয়ের সাথে সেটাও প্রায় ৯ মাস আগে। তবে এর আগে ঘরের মাঠে টানা চারটি সিরিজ জিতেছিলো টাইগাররা। অবশেষে ৯ মাস পর আফগানিস্তানের সাথে সিরিজ দিয়েই আন্তর্জাতিক একদিনের ক্রিকেটে ফিরছে বাংলাদেশ। আফগানিস্তান বাংলাদেশে থাকাকালীন সময়ে আসবে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল। আগামী দশ মাসে কমপক্ষে ৩১ টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবে বাংলদেশ। আর আফগানিস্তান সিরিজ দিয়েই হচ্ছে সেই সূচনা।

তাই এই সিরিজে জয় দিয়েই ভালো শুরু করতে চায় টাইগাররা। আর নির্বাচকরাও কোনো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে চান না। কেননা অনেকদিন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে না থাকার একটা প্রভাব পড়তে পারে। এর উপর দেশের সেরা পেসার মুস্তাফিজুর রহমান আছেন ইনজুরিতে। খেলতে পারবেন না আসন্ন এই দুই সিরিজ। স্পিনার আরাফাত সানি ও পেসার তাসকিন আহমেদও নিষেধাজ্ঞার কারণে আছেন দলের বাহিরে। তাই সেরা দল গড়তে একটু ভালোভাবেই ভাবতে হচ্ছে নির্বাচকদের। তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে অসাধারণ পারফর্মের জন্য দলে দুই-একটা পরিবর্তনের আভাস দিয়েছেন তাঁরা।

‘মিস্টার ফিনিশার’ খেতাব পাওয়া নাসির হোসেন ও সাম্প্রতিক ঘরোয়া ক্রিকেটের অন্যতম বড় পারফর্মার মোসাদ্দেক হোসেনের মধ্যে একজন পেতে পারেন চূড়ান্ত স্কোয়াডে সুযোগ। একসময় জাতীয় দলের অন্যতম ভরসা ছিলেন নাসির হোসেন। নির্ভরতার প্রতিক হয়ে একের পর এক ম্যাচ জিতিয়েছেন টাইগারদের। কিন্তু ফর্মহীনতায় হঠাত করেই জাতীয় দলে অনিয়মিত হয়ে পড়েন এই ক্রিকেটার।

তবে কিছুদিন আগে শেষ হওয়া ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশনাল প্রিমিয়ার লিগে ব্যাট-বলে অসাধারণ পারফর্ম করেছেন নাসির। ১৬ ম্যাচের ১২ ইনিংস ব্যাটিং করে ৭৫ গড়ে করেন ৫২৮ রান, স্ট্রাইকরেটও ছিলো শতকের কাছাকাছি (৯৬.৮৮)। অন্যদিকে বল হাতে নিয়েছেন ১৪ উইকেট। পাশাপাশি টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ ক্যাচ নিয়েছেন তিনি (১২ টি)। তাই আবার দলে সুযোগ পাবার অন্যতম দাবিদার নাসির হোসেন।

তবে এবারের প্রিমিয়ার লিগে সবার নজর কেড়েছেন তরুণ মোসাদ্দেক হোসেন। ১৬ ম্যাচের ১৪ ইনিংসে ব্যাটিং করে ৭৮ গড়ে করেছেন ৬২২ রান। পাশাপাশি স্ট্রাইকরেটও (১০৪.৮৯) অনেক ভালো মোসাদ্দেকের। টুর্নামেন্টে ৪০০ এর অধিক রান করা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সবেচেয়ে বেশি গড় ও স্ট্রাইকরেট এই তরুণের। এদিকে স্পিন বোলিং এ নিয়েছেন ১৫ উইকেট। তাই দলে অভিষেকের অপেক্ষায় ময়মনসিংহের এই ক্রিকেটার।

উল্লেখ্য, ঈদ-উল-আযহার ছুটির পর ১৮ সেপ্টেম্বর জাতীয় দলের চূড়ান্ত স্কোয়াড ঘোষণা করার কথা থাকলেও তা করা হয় নি। অনেক বিষয় ভাবতে হচ্ছে নির্বাচকদের। ইনজুরিতে থাকা তামিম ইকবাল খেলবেন কিনা সেটি জানতে আরো দুই-তিন দিন সময় লাগবে। এর মাঝে এসে যাবে তাসকিন আহমেদের পরীক্ষার ফলাফল। সব দিক বিবেচনা করেই একটু দেরীতে আসন্ন সিরিজের জন্য দল ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন নির্বাচকরা। — বিডিক্রিকটিম