মাশরাফি-তাসকিন-রুবেলের প্রশংসায় ওয়ালশ

সাকিব ও মাশরাফির শেষ স্পেলের পর ম্যাচ অনেকটাই হেলে পড়ে বাংলাদেশের দিকে। শেষ তিন ওভারে আফগানদের জয়ের জন্য প্রয়োজন পড়ে ২১ রানের। ততক্ষণে দুই সফল বোলার সাকিব-মাশরাফির দশ ওভার শেষ; স্বাভাবিকভাবেই রুবেল-তাসকিনের ওপরই আস্থা রাখতে হয়েছে অধিনায়ককে। খুব ভালো করেই আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন এই দুই পেসার। ৪৮তম ওভারে তাসকিন ৬ রানের বিনিময়ে তুলে নেন গুরুত্বপূর্ণ দুটি উইকেট। পরের ওভারে মাশরাফি বল তুলে দেন রুবেলের হাতে।

গুরুত্বপূর্ণ ওই ওভারে রুবেল এক উইকেট তুলে নিয়েছেন। শেষ ওভারে জয়ের জন্য প্রয়োজন ১২ রান। এই পরিস্থিতে বোলিং করে তাসকিন হয়েছেন সফল। ৫ রান খরচ করে নিয়েছেন দুটি উইকেট। বাংলাদেশ ম্যাচ জেতে ৭ রানে। মাশরাফি-রুবেল-তাসকিনের প্রশংসা করে তাদের গুরু কোর্টনি ওয়ালশ বলেছেন, ‘ছেলে দুটো অসাধারণ ভালো বোলিং করেছে শেষ দুই ওভারে। সাকিব খেলা পাল্টিয়ে দেওয়া একটি ওভার করেছে এবং এটাই সবকিছু ঠিক করে দিয়েছে। অন্য ছেলেরা আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছে এবং রানরেটে বেড়ে গেছে। এটা দারুন একটা দলগত নৈপুণ্য।’ মাশরাফি নিজেও দারুণ বোলিং করেছে গত ম্যাচে।

শুধু তাই নয়, দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন দারুণ ভাবে। তাইতো কোচের কণ্ঠে শিষ্যর প্রশংসা। অধিনায়কত্বের প্রশংসা করতে গিয়ে তিনি বলেছেন, ‘আমি মনে করি অধিনায়ক খুব ভালো বল করেছে এবং ভালোভাবেই সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছে।’ তাসকিন ৮ ওভার বোলিং করে ৫৯ রান খরচ করে উইকেট নিয়েছেন চারটি। নিষেধাজ্ঞা থেকে ফিরে দারুণ এক প্রত্যাবর্তন ম্যাচই বলা চলে। তাসকিনের ফিরে আসা প্রসঙ্গে কোর্টনি ওয়ালশ বলেছেন, ‘আমি মনে করি সে অনেক ভালো করেছে। খেলার আগে সে কিছুটা চাপে ছিল।

আইসিসি কর্তৃক রিপোর্টেড হয়ে ম্যাচে খেলাটা বেশ চাপের। শুরুতে সমস্যা হলেও শেষে প্রয়োজনে কার্যকর হয়ে উঠেছে তাসকিন। সে যেভাবে ফিরেছে সেটার কৃতিত্ব তাকে দিতেই হবে।’ — বাংলা ট্রিবিউন