ফুটবলে সবুজ কার্ডের ব্যবহার

ফুটবল খেলায় হলুদ ও লাল কার্ডের প্রচলন রয়েছে অনেক আগে থেকেই। সাধারণত খেলোয়াড়দের ফাউল আচরণ সতর্ক করে দেওয়ার জন্য দেখানো হয় হলুদ কার্ড। আর অপরাধ গুরুতর হলে লাল কার্ড দেখিয়ে খেলোয়াড়দের মাঠছাড়া করে থাকেন রেফারিরা। কিন্ত এবার ব্যবহার হচ্ছে সবুজ কার্ড।

ইতালির সেকেন্ড ডিভিশনের একটি ম্যাচে সবুজ কার্ড দেখিয়ে ইতিহাস রচনা করলেন রেফারি মার্কো ম্যাইনার্ডি।

সেকেন্ড ডিভিশনের দুই ক্লাবের ম্যাচে বল নিয়ে বিপক্ষের গোলের দিকে এগোচ্ছিলেন ভিশেনজা ক্লাবের ফরওয়ার্ড ক্রিশ্চিয়ান গেলানো। সামনে বাধা বুঝে শট নেন তিনি। বল গোলপোস্টের পরিবর্তে ব্যাকে চলে যায়। কর্নার দাবি করেন ভিশেনজার ফুটবলাররা।

কিন্তু, বিপক্ষের দাবি ছিল ‘বল ডিফেন্ডারকে ছুঁয়েছে কিনা, সেটা স্পষ্ট করুন গেলানো।’

রেফারি মার্কো ম্যাইনার্ডিও তাই করেন। ফরওয়ার্ড গেলানোকে জিজ্ঞেস করেন আদৌ কর্নার হয়েছে কিনা। ২৫ বছরের ফরওয়ার্ড মিথ্যা বলেননি রেফারিকে। জানিয়ে দেন, না কর্নার নয় ওটা আসলে গোল-কিক হবে। কারণ বল বিপক্ষের ডিফেন্ডারকে ছোঁয়নি।

গেলানোর সততার নজির বিফল যায়নি। তাকে ফুটবলের ইতিহাসের প্রথম সবুজ কার্ড বা গ্রিন কার্ড দেখান রেফারি।

ক্রিকেটে ফেয়ার প্লে পুরস্কার থাকলেও ফুটবলে এমন নজির নেই। কিন্তু, গ্রিন কার্ডকে এই উদ্দেশ্যেই ব্যবহার করতে চায় সেকেন্ড ডিভিশন ক্লাবের প্রেসিডেন্ট আন্দ্রে আবোদি। গোল ম্যাগাজিনকে তিনি বলেন, ‘অসাধারণ কোনো কৃত্বিতের জন্যই এই সবুজ কার্ড।’

ফুটবলে সঠিক সিদ্ধান্তের জন্য আধুনিক নানা প্রযুক্তি থাকলেও মাঝে মাঝেই ধাঁধায় পড়তে হয় রেফারিদের। তাই খেলোয়াড়রা নিজ থেকে সততার পরিচয় দিলে তাদের সবুজ কার্ডের মাধ্যমে সম্মানিত করতেই এমন উদ্যোগ।