কারা আসছেন বাংলাদেশ সফরে?

অনেক দ্বিধা-সংশয়ের পর শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ সফরে না আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইংল্যান্ডের ওয়ানডে দলের অধিনায়ক ওয়েন মরগান ও উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স হেলস। এ নিয়ে বেশ সমালোচনার মুখেও পড়তে হয়েছে মরগানকে। তাঁদের মতো অন্য কেউ অবশ্য বাংলাদেশে আসার ব্যাপারে আপত্তি জানাননি।

ইংল্যান্ডও বাংলাদেশে আসতে চায় পূর্ণ শক্তির দল নিয়ে। শেষ পর্যন্ত কারা আসবেন আর কারা আসবেন না, তা জানা যাবে আজ শুক্রবার। বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টায় বাংলাদেশ সফরের দল ঘোষণা করবেন ইংল্যান্ডের নির্বাচকরা।

বাংলাদেশ সফরে দেখা যেতে পারে ইংল্যান্ডের কিছু নতুন মুখ, যার মধ্যে অন্যতম ১৯ বছর বয়সী হাসিব হামিদ। ঘরোয়া ক্রিকেটে দারুণ নৈপুণ্য দেখিয়ে নির্বাচকদের নজর কেড়েছেন এই ডানহাতি ওপেনার। কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে করেছেন ১,১২৯ রান। টেস্টে হামিদকে দেখা যেতে পারে অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুকের উদ্বোধনী জুটির সঙ্গী হিসেবে।

২০১২ সালে অ্যান্ড্রু স্ট্রাউসের অবসরের পর থেকেই ওপেনার সংকটে ভুগছে ইংল্যান্ড। গত চার বছরে কুকের সঙ্গী হিসেবে দেখা গেছে আটজন ভিন্ন ভিন্ন ব্যাটসম্যানকে। গত মাসে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে হেলস খেলেছিলেন ওপেনার হিসেবে। সেই হেলস সরে দাঁড়িয়েছেন বাংলাদেশ সফর থেকে।

ফলে এখন তাঁর জায়গায় দেখা যেতে পারে হামিদকে। তবে বাজে পারফরম্যান্সের কারণে হেলস এমনিতেও টেস্ট দল থেকে বাদ যেতেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে বিবিসির প্রতিবেদনে। ঘরের মাটিতে চারটি টেস্টে আট ইনিংস খেলে হেলস করতে পেরেছিলেন মাত্র ১৪৫ রান।

হামিদের পাশাপাশি বেন ডাকেটের কথাও শোনা যাচ্ছে জোরেশোরে। ২১ বছর বয়সী এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের নাম থাকতে পারে ইংল্যান্ডের টেস্ট ও ওয়ানডে—দুই দলেই। গত জুলাইয়ে পাকিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে একটি ওয়ানডে ম্যাচে তিনি খেলেছিলেন ১৬৩ রানের অপরাজিত ইনিংস।

বাংলাদেশ সফরে তিন স্পিনারের দল সাজাতে পারে ইংল্যান্ড। মইন আলী ও আদিল রশিদ যে থাকছেন, সেটা প্রায় নিশ্চিত। তৃতীয় স্পিনার হিসেবে দেখা যেতে পারে লিয়াম ডউসন, গ্যারেথ ব্যাটি বা জ্যাক লিচকে।

পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে ক্যারিয়ারের একমাত্র ওয়ানডেটি খেলেছেন ডউসন। ৩৮ বছর বয়সী ব্যাটি বাংলাদেশ সফরের দলে সুযোগ পেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে পারবেন দীর্ঘদিন পর। ২০০৯ সালে শেষ ওয়ানডেটি খেলেছিলেন এই অফস্পিনার। বাঁহাতি স্পিনার জ্যাক লিচ এখনো সুযোগ পাননি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার।

আগামী ৭ অক্টোবর থেকে শুরু হবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে ও দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। ৩০ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পৌঁছানোর কথা ইংল্যান্ডের ক্রিকেটারদের।