ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হেসে-খেলেই হারাল পাকিস্তান

দীর্ঘদিন ধরে দেশের মাটিতে না খেলেও দুর্বার পাকিস্তান! শুক্রবারও তার প্রমাণ দেখল ক্রিকেট বিশ্ব। শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে হেসে খেলেই জিতল তারা। নিরপেক্ষ ভেন্যু দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সরফরাজ আহমেদের পাকিস্তান ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। টসে জিতে এদিন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রথমে ব্যাটিংয়ে পাঠায় পাকিস্তান।

কিন্তু হায়! টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজকে যেন এদিন খোঁজেই পাওয়া যায়নি। মাত্র ২২ রানেই প্রথম সারির পাঁচ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ফেলে তারা। আরও একটু হিসেব কষে বললে দলের ৯ ব্যাটসম্যানের রান মাত্র ৩০! এই নয় ব্যাটসম্যানের কেউ-ই দুই অংকের কোটা স্পর্শ করতে পারেননি। দুই অংকের কোটা ছাড়িয়েছেন মাত্র দুইজন। একজন, জেরোমি টেইলর করেছেন ২১ বলে ২১ রান।

আরেকজন, ডোয়াইন ব্রাভোই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে এদিন বড় ধরণের লজ্জা থেকে বাঁচান। সতীর্থরা যখন উইকেটে এসে স্থির না হওয়ার আগে সাজঘরে ফিরে যাওয়ার মিছিলে নামেন তখন ব্রাভো নিজেকে একাই একশো ভেবে পাকিস্তানের বোলারদের শাসন করছিলেন।

শেষ পর্যন্ত আউট হওয়ার আগে ৫৪ বলে ৫৫ রান করেন তিনি। আর তার অর্ধ-শতকের সৌজন্যেই সবকটি উইকেটের বিনিময়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্কোরবোর্ডে সম্মানজনক ১১৫ রানের সংগ্রহ দাঁড়ায়। ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই অল্প রানে আটকানোর মূল নায়ক ইমাদ ওয়াসিম।

৪ ওভার বল করে ৫ উইকেট তুলে নেন তিনি! বিনিময়ে রান দেন ১৪। আর ২ উইকেট নিয়ে তাকে সহায়তা করেন দলের অভিজ্ঞ বোলার সোহেল তানভীর। মোহাম্মদ নেওয়াজ ও হাসান আলী উভয়ই ১টি করে প্রতিপক্ষের উইকেট লাভ করেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেওয়া অল্প রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে আউট হন শুধু শারজিল খান। তাও ২২ রান করে দলকে সঠিক পথ দেখিয়েই।

এরপর বাবর আজমকে সঙ্গী করে পথ না হারিয়ে জয়ের স্বাদ নিয়েই মাঠ ছাড়েন আরেক উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান খালিদ লতিফ। দু’জনই অপরাজিত থাকেন। ৩২ বলে ৩৪ রান করেন লতিফ। আর টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে বাবর আজম প্রথম অর্ধশতক (৫৫) পূর্ণ করলে স্কোরবোর্ডে পাকিস্তানের রান দাঁড়ায় ১৪.২ ওভারে ১১৬/১। অর্থাৎ ৩৪ বল আগেই জয়ের তৃপ্তি নিয়ে মাঠ ছাড়েন তারা।

তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৫ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেন ইমাদ ওয়াসিম। শনিবার নিজেদের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে মুখোমুখি হবে এই দুই দল। তিন ম্যাচের শেষ টি-টোয়েন্টি হবে ২৭ সেপ্টেম্বর। ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে পাকিস্তান-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওয়ানডে সিরিজ।