আফগানিস্তানের বিপক্ষেই তাসকিন-সানিকে চায় বিসিবি

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের দায়ে নিষিদ্ধ তাসকিন আহমেদ এবং আরাফাত সানিকে আফগানিস্তান সিরিজেই পেতে চায়। নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্তির লক্ষ্যে অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনে গত ৮ সেপ্টেম্বর অ্যাকশনের পরীক্ষা দিয়ে এসেছেন এই দুই বোলার। বিসিবির আশা, ২২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হবে এবং নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্তি পাবেন বাংলাদেশের এই দুই বোলার। তাহলেই কেবল, আফগানিস্তান সিরিজে পাওয়া যাবে তাদেরকে।

গত শনিবার বিসিবি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আরাফাত সানি এবং তাসকিন আহেমেদকে পাওয়ার আশা প্রকাশ করেন মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। তিনি বলেন, ‘তারা দু’জন ব্রিসবেনে পরীক্ষা দিয়েছে গত ৮ সেপ্টেম্বর। আমরা আশা করছি, ১৪ দিনের মধ্যে ফল প্রকাশ হয়ে যাবে। তারা দু’জনই (তাসকিন-সানি) খুব অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে। নির্বাচকরাও অপেক্ষায় রয়েছে, একটা ইতিবাচক রেজাল্টের। যদি ইতিবাচক রেজাল্ট আসে, তাহলে তাদের দু’জনকেই দলের সঙ্গে অন্তর্ভূক্ত করে নেয়া হবে।’

অবৈধ অ্যাকশনের দায় থেকে মুক্তি পেয়ে গেলে অবশ্যই এই দু’জনকে দলে ফিরিয়ে আনা হবে। তাসকিন তো ইতিমধ্যেই ২০ সদস্যের প্রাথমিক স্কোয়াডে জায়গা করে নিয়েছেন। আরাফাত সানিকে বাদ দেয়া হলেও যে কোন সময় তাকে দলে ডেকে নেয়া হতে পারে।

প্রসঙ্গত, গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মাঝপথেই অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের দায়ে নিষিদ্ধ হন বাংলাদেশের পেসার তাসকিন আহমেদ এবং স্পিনার আরাফাত সানি। চেন্নাইতে পরীক্ষা দেয়ার পরও তাদের অ্যাকশনে ত্রুটি ধরা পড়ে এবং নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়ে বিশ্বকাপ চলাকালীনই দেশে ফিরে আসতে বাধ্য হন।

এদিকে, আগামী ২১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পৌঁছানোর কথা আফগানিস্তান ক্রিকেট দলের। ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে মাঠে গড়াবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। পরবর্তী দুটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ২৮ সেপ্টেম্বর ও ১ অক্টোবর। সব ম্যাচই শুরু হবে দুপুর আড়াইটায়। অথ্যাৎ তিন ম্যাচের সিরিজটি হবে দিবা-রাত্রীর।

এখন পর্যন্ত আফগানিস্তানের বিপক্ষে দুটি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। জয় পেয়েছে একটিতে। গত বছরের বিশ্বকাপে। আর ২০১৪ সালে প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপ খেলতে এসেই বাংলাদেশকে হারের স্বাদ দিয়েছিল আফগানিস্তান।